দাঁত ভালো রাখতে বাদ দিন কিছু অভ্যাস

কথায় বলে ‘দাঁত থাকতে দাঁতের মর্যাদা’ না দিলে বিপদ। আদতেই সত্যি কথা। বিষয়টা হলো- দাঁতের যত্নে কোনো হেলাফেলাই করা ঠিক না। দৈনন্দিন জীবনে কিছু অভ্যাসের কারণে দাঁত ও মাড়ি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যাতে দেখা দেয় দাঁতের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা যেমন ক্ষয়, ক্যাভিটি, দাঁতের গোড়া দুর্বল হয়ে যাওয়া, অকালে দাঁত পড়ে যাওয়া, দাঁতের সেটিং নষ্ট হয়ে যাওয়া এবং মাড়ি থেকে রক্ত পড়া।

আর একবার দাঁত নিয়ে গাড্ডায় পড়লে একদিকে যেমন কষ্ট পেতে হয়, অন্যদিকে ব্যয়বহুল চিকিৎসায় হুড়হুড় করে বেরিয়ে যাবে মোটা অংকের টাকাও। তাই কিছু অভ্যাস বদলে নিলেই এড়ানো যাবে ভোগান্তি।

আমেরিকান ডেন্টাল অ্যাসোসিয়েশন (এডিএ) বলছে, শক্ত টুথব্রাশের ব্যবহার বা জোরে ব্রাশ করলে তা দাঁত ও মাড়ির ক্ষতি হয়। তাই নরম টুথব্রাশের ব্যবহার ও চাপ না দিয়ে ব্রাশ করার উচিৎ। অনেকের দাঁত দিয়ে নখ কাটার বাতিক আছে। বাজে এই অভ্যাসটি দাঁতের পাশাপাশি শরীরেরও অনেক ক্ষতি করে। এডিএ বলছে, দাঁত দিয়ে নখ কাটার ফলে চোয়ালের কর্মক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে ।

ছোট-বড় অনেকেই বরফ চিবিয়ে খান, যা দাঁতের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। বরফ চিবানোর ফলে দাঁতের এনামেল বা প্রতিরক্ষামূলক স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তামাক জাতীয় দ্রব্য দাঁত ও শরীরের জন্য মারাত্মক ক্ষতি করে। তামাক ব্যবহারের ফলে মাড়ির রোগ, মুখে দুর্গন্ধ, শুষ্ক মুখ, দাঁতের ক্ষয় এবং ওরাল ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে।

দাঁতের ফাঁকে খাবার আটকে গেলে অনেকেই টুথপিক দিয়ে পরিষ্কার করেন। টুথপিক ব্যবহারের ফলে দাঁতের পাশাপাশি মাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই খারাপ অভ্যাসগুলো পরিত্যাগ করলেই ভালো রাখা যাবে দাঁত।

আরো পড়ুন

কলার সঙ্গে দই খান, সাথে সাথেই ফলাফল!

পালংও উপকারী, আবার পাতিলেবু। জানেন কি এই দুইয়ের যুগলবন্দিতে কী হবে? কেন দইয়ের সঙ্গে কলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *