বাড়িতে মাংস না থাকলেও শুধু ডিম দিয়ে এই পদ্ধতিতে মাংসের চেয়েও মজার রান্না করে চমকে দিতে পারেন সবাইকে, চেটে পুটে খাবে সবাই রইল রেসিপি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের অনেকের বিভিন্ন আইটেম রান্না করার পদ্ধতি না জানার কারণে অনেক ধরনের আইটেম রান্না করে খাওয়া হয় না। এবং অনেক রেসিপির সঠিক পদ্ধতি না জানার কারণে সঠিক স্বাদটুকু আমরা অনুভব করতে পারি না। শুধু রান্না করা জানলেই হবে না জানতে হবে রান্না করার সঠিক পদ্ধতি, তা না হলে আপনারা সঠিক স্বাদ উপভোগ করতে পারবেন না। খাবারে ব্যবহৃত প্রত্যেকটি উপকরণসমূহ পরিমাণমতো না দেওয়ার কারণে আমাদের খাবারের গুণগত মান নষ্ট হয়ে যায়।

এবং খাবারের স্বাদ টুকুও বদলে যায়। তাই আলাদা আলাদা কাপড়ের আলাদা আলাদা স্বাদ অনুভব করার জন্য প্রয়োজন খাবারে ব্যবহৃত প্রত্যেকটি উপাদানের প্রয়োগের সঠিক মাত্রা। আমরা অনলাইনে ইউটিউবে বিভিন্ন খাবারের রেসিপি সহ রান্নার পদ্ধতির ভিডিও পেয়ে থাকি। যার মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন খাবারের রান্না করার সঠিক পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারি । খাবারের স্বাদ নির্ভর করে রান্নার পদ্ধতির উপর। ভুল পদ্ধতিতে খাবার রান্না করলে খাবারের সঠিক স্বাধ উপভোগ করা যায় না। যার জন্য প্রয়োজন আলাদা আলাদা খাবার রান্না করার আলাদা আলাদা সঠিক পদ্ধতি।

উপকরণসমূহঃ মসুরের ডাল, ডিম, পেঁয়াজ, কাঁচা মরিচ, আদা, রসুন,টমেটো ও কাঁচামরিচ বাটা, গরম মসলা,মরিচ এবং হলুদের গুঁড়া, শুকনো মরিচ তেজপাতা, ধনিয়া এবং জিরার গুড়া, লবণ এবং চিনি, আলু, রান্নার তেল, তেজপাতা, এলাচ, দারচিনি

রন্ধন প্রণালী। প্রথমে কিছু মুসুরির ডাল ভালো করে ধুয়ে ঘন্টা দুয়েক ভিজিয়ে রাখতে হবে।- তারপরে গুলোকে ভাল করে একটি ব্লেন্ডার মেশিন দিয়ে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। তারপরের সাথে তিনটি ডিম, পেঁয়াজ কুচি, কাঁচা মরিচ ,আদা রসুন বাটা, লবণ এবং হলুদ দিয়ে ভালো করে মিশ্রণটি মিক্স করে খুব কম পরিমাণে তেল দিয়ে এপিঠ ওপিঠ করে ভাল করে ভেজে নিতে হবে। তারপর এটি চুলা থেকে নামিয়ে ঠান্ডা করে কেটে ছোট ছোট টুকরো পরিণত করতে হবে ।

তারপর একটি পাত্রের কিছু পরিমাণ আলু বড় বড় করে কেটে নিয়ে এপিট ওপিট করে ভেজে নিতে হবে। আলু গুলো তুলে নিয়ে এরমধ্যে তেজপাতা, দারচিনি, এলাচ,আস্ত জিরা ও শুকনা মরিচ দিয়ে একটু নেড়ে চেড়ে এর মধ্যে কিছু পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিতে হবে। পেঁয়াজটা মোটামুটি ভাজা হয়ে গেলে এরমধ্যে আদা রসুন টমেটো ও কাঁচা মরিচ বাটা দিয়ে মসলাটি খুব ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে।

তারপর এরমধ্যে আধা চামচ এর মত হলুদ, আধা চামচ মরিচ, আধা চামচ জিরা, আধা চামচ ধনিয়া ও পরিমাণমতো লবণ ও চিনি দিয়ে সামান্য পরিমাণে পানি মিক্স করে ভালো করে কষিয়ে নিতে হবে। এবং এর মধ্যে ভেজে রাখা আলু টুকরোগুলো দিয়ে ভালো করে কষিয়ে পরিমাণমতো পানি দিয়ে দিতে হবে। পানি যখন ভালো করে ফুটতে থাকে তখন এর মধ্যে ডিমের টুকরোগুলো ছেড়ে দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। এবং 20 থেকে 25 মিনিট সাধারণ নিয়মের চুলায় বসিয়ে রাখলেই তৈরি হয়ে যাবে স্বাদের রেসিপি।

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুনঃ

আরো পড়ুন

নারীদের মধ্যে যে লক্ষনটি থাকলে যমজ সন্তান হওয়ার প্রবণতা ৯০% থাকে, এটি পরীক্ষিত ও প্রমানিত!

মাতৃত্বের স্বাদ যে কোন মেয়ে পেতে চায় । সন্তান জন্ম নেওয়ার পাশাপাশি বেশকিছু ধরনের ফ্যাক্টর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *