শিখে নিন অতি সহজে রা’গ কমানোর সহজ কৌ’শল

কথায় আছে রেগে গে’লেন তো হেরে গে’লেন। হুটহাট মাথা গরম অনেকেরই হয়। তবে চটে গিয়ে ভালোভাবে কোনো কিছু করা সম্ভব নয়। রাগের ফলে শুধু ক্ষয়ক্ষ’তি বাড়ার সম্ভাবনা থেকে যায়। তাই রাগ কমানোটা খুবই জ’রুরি।

তবে বললেই কি আর রাগ কমে? রাগের সময় হলে কি আর রাগ কমানোর কথাটা মনে থাকে? জানি এসব মনে থাকে না। তবুও রাগ কোনো ভালো কথা না। রাগের মাথায় সব সিদ্ধা’ন্তই ভুল হয়। তাই দেখে নিন কিভাবে আয়ত্বে রাখবেন রাগকে।

১.খুব বেশি স্ট্রেসড লাগলে নির্জন কোণ বেছে নিন এবং তারপর রাগের কারণটি নিয়ে নিবিড়ভাবে ভাবতে থাকুন। আপনি কতটা খা’রাপ আছেন, আপনার উপর কত অন্যায়-অবিচার হচ্ছে এসব নিয়ে ভেবেই চলুন।ভাবতে ভাবতে একটা সময় হয় আপনি অত্যন্ত ভে’ঙে পড়বেন। নিজে’র উপর নিজে’রই মমতা হবে। এই ক্যাথারসিসের পরেই আস্তে আস্তে মাথাটা ঠান্ডা হবে, মন হালকা হবে এবং রাগ কমে যাবে।

২.কেউ কোন খা’রাপ কথা বলায় যদি রাগ হয় তবে চেঁচামেচি না করে ঠান্ডা মাথায় তাকে ক’ঠিন কথা বলুন। মিষ্টি করেই কিন্তু সবচেয়ে সাংঘাতিক কথা বলা যায়।৩.হাতের কাছে চকলেট অথবা আপনার খুব প্রিয় কোন খাবার রাখু’ন। মাথা গরম হয়ে গেলেই মুখে পুরে দিন। এগু’লি হল মুড বুস্টার। যতই এর স্বাদ নেবেন, ততই আপনার মুড ভাল হতে থাকবে এবং রাগ কমবে।

৪.মাথা গরম হলেই যেখান আছেন, সেখান থেকে বেরিয়ে চলে যান। সব সময় হয়তো তেমন প’রিস্থিতি থাকে না কিন্তু এটা ক’রতে পারলে রাগের মাথায় অনেক ভুল কাজ করে ফেলা থেকে নিজেকে বাঁ’চাতে পারবেন।৫.মাথা গরম হলেই কানে হেডফোন গুঁজে গান শুনতে শুরু করুন। তারপর চোখ বুজে ডুবে যান সেই গানে। আর কোন ভাবনা মাথায় আসতেই দেবেন না।

৬.হাতের কাছে কাগজ থাকলে আঁকাআঁকি কাটতে শুরু করুন। মাথা যত ঠান্ডা হতে থাকবে, ততই দেখবেন ওই আঁকাআঁকি পালটে যাচ্ছে সুন্দর ছবিতে।৭.ফোনে গেম খেলতে শুরু করুন। রাগ কমাতে এটিও ভাল কাজে দেয়।৮. যদি রাগ হওয়ার সময়ে বাড়িতে থাকেন, তবে দরজা ব’ন্ধ করে সাজগোজ করুন। নিজেকে সবচেয়ে সুন্দর করে যেভাবে খুশি সাজান। মন ভাল হলে তবেই দরজা খুলবেন।

৯.কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ুন, সে বাড়ির কাজই হোক বা অফিসের কাজ। যে কারণে রাগ সেটি মাথা থেকে সরে গেলেই রাগ পড়ে যাবে।১০.হাতের কাছে সব সময় সুগন্ধি রাখবেন। রাগ হলেই স্প্রে করবেন হাতে। সুন্দর অ্যারোমা নার্ভকে রিল্যাক্স করে। মন ভাল হয়ে যায়।

আরো পড়ুন

মাত্র কয়েক মিনিটেই বাড়ি ছেড়ে পালাবে সব আরশোলা, জেনে নিন সহ’জ উপায়

ঘর-বাড়ি প’রিষ্কার রাখার ক্ষেত্রে কিছু কী’ট-পতঙ্গ আমাদের চিন্তার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়ায়। যেমন, আরশোলা।রান্নাঘর, বাথরুম ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.