করোনার পাশাপাশি,বন্যার ঝুঁকিতে আরও ৮ কোটি ৬০ লাখ মানুষ : গবেষণা

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুনঃ বন্যা এবং ভূমিধসে দেশটিতে মোট ৭৯০টি বাড়ি ডুবে গেছে। এর পাশাপাশি ৫১৯টি বাড়ি, ৯০টি গোশালা এবং ১৯টি সেতু ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।
নেপালের সেনা, পুলিশ এবং সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করছেন। এ বছরের প্রাকৃতিক এই দুর্যোগে এখন পর্যন্ত ৫ হাজার ১০০ জনের বেশি মানুষ বাস্ত্যুচুত হয়েছেন।
জলবায়ু পরিবর্তন এখন বিশ্বব্যাপী সত্য প্রমাণিত হয়েছে। এটির কারণে গত দুই দশকে পুরো বিশ্বে বন্যার ঝুঁকিতে থাকা মানুষের সংখ্যা ২৫ শতাংশ বেড়েছে। সংখ্যার হিসেবে যা ৮ কোটি ৬০ লাখ। সম্প্রতি এ তথ্য জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান।

কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থ ইনস্টিটিউটের গবেষক ও বন্যা বিশ্লেষণভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ক্লাউড টু স্ট্রিটের সহপ্রতিষ্ঠাতা বেথ টেলম্যান জানান, আগের সংখ্যার তুলনায় বর্তমানে ১০ গুণ বেশি মানুষ বন্যার ঝুঁকিতে রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সাম্প্রতিক সময়ে ভারত, চীন, জার্মানি ও বেলজিয়ামসহ ইউরোপে ভয়াবহ বন্যার দেখা দিয়েছে। অসংখ্য মানুষের মৃত্যুর পাশাপাশি ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

সাধারণত দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোকে বন্যাপ্রবণ এলাকা হিসেবে দেখা হলেও স্যাটেলাইট থেকে পাওয়া তথ্য বলছে ভিন্ন কথা। সেখানে দেখা যায়, লাতিন আমেরিকা ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোয় বন্যার পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে। ভবিষ্যতে কেবল আফ্রিকাতেই বন্যায় প্রতিবছর ২৭ লাখ মানুষ গৃহহীন হতে পারে। ২০৫০ সালের মধ্যে এ সংখ্যাটা সাড়ে আট কোটি ছাড়াবে।

বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী নেচারে প্রকাশিত প্রবন্ধে গবেষকরা জানান, ২০০০ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ২২ লাখ ৩০ হাজার বর্গকিলোমিটার অঞ্চল বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে এবং ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বিশ্বের প্রায় ২৯ কোটি মানুষ।

আরো পড়ুন

বিবাহিত পুরুষদের লিখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার অনুরোধ রইল!

মানুষকে নিজের প্রতি আকর্ষিত করার তেমন কোনো রুলবুক নেই। কারণ ভিন্ন মানুষ ভিন্ন ভাবনার হন। …