বিবাহিত বস আমার সঙ্গে প্রেম করতে চায়, বদলে প্রোমোশন আর বেশি বেতন দেবে বলছে, আমি কী করব?

Office Affair: এই তরুণীর বয়স খুব বেশি নয়। তিনি অবিবাহিত। কিন্তু তাঁর বিবাহিত বস তরুণীর সঙ্গে প্রেম করতে চাইছেন। এখন সেই তরুণী কী করবেন, বুঝতে পারছেন না। বিশেষজ্ঞের সাহায্য চাইছেন। কী পরামর্শ বিশেষজ্ঞের?

Real Extramarital Affair Story: জীবনের পথচলা সহজ হয় না। মাঝেমধ্য়েই কঠিন পরিস্থিতিতে পড়তে হয় আমাদের। কিন্তু পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে ওঠে নিজেদের সামান্য কিছু দোষে। কিন্তু কী আর করা যাবে? এই ভুলগুলি হয়তো আমরা অজান্তেই করি। কখনও এটা ভাবতে পারি না যে, একটা মাত্র ভুল পদক্ষেপে জীবন তছনছ হয়ে যেতে পারে। যাই হোক, আমিও এরকম কঠিন পরিস্থিতিতে পড়েছি। কী করব বুঝতে পারছি না। আমি একজন অবিবাহিত মেয়ে(Unmarried Woman)।

আমার কোনও প্রেমিকও নেই। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, আমি যে কারও সঙ্গে সম্পর্কে যেতে পারি। কিন্তু এখন পরিস্থিতি যেন সেরকমই। তার কারণ আমার বস। সম্পূর্ণ ঘটনাই আমি আপনাদের জানাব। কোন কাজটি করা ঠিক হবে, তা আমায় বলুন। অনুগ্রহ করে পরামর্শ (Relationship Tips) দিয়ে সাহায্য করুন। বিশেষজ্ঞের সাহায্য চাই।

বিবাহিত বস প্রেম করতে চায় আমি একজন অবিবাহিত মেয়ে। একটি ভালো কোম্পানিতে কাজ করি। আমি পরিশ্রমী। বারবারই আমার কাজের জন্য প্রশংসা পেয়েছি। কিন্তু পরিস্থিতি এখন খুব জটিল। কয়েকদিন ধরেই আমার বস আমায় অন্যরকম ইঙ্গিত দিচ্ছেন। তিনি বিবাহিত। তারপরেও তাঁর সঙ্গে সম্পর্কে আসার জন্য জোর করছেন। সেরকমই ইঙ্গিত বারবার দিচ্ছেন। তাঁর কথা শুনে বোঝা যাচ্ছে।

এই কথাও বলছেন যে, তাঁর সঙ্গে সম্পর্কে এলে আমার জীবন বদলে যাবে। কোম্পানিতে আমি প্রোমোশন পাব। আমার ক্ষমতা বাড়বে। বেতনও বাড়বে। আমি আরও বেশি ক্ষমতা চাই। বেতন চাই বেশি। তাই সরাসরি তাঁকে না বলতে পারছি না। দ্বন্দ্ব মনের মধ্য়ে থেকেই যাচ্ছে।

এখন আমি কী করি? এই কাজটি পাওয়ার জন্য আমি যথেষ্ট পরিশ্রম করেছি। আর তিনি একজন বিবাহিত পুরুষ। আমার ভয় লাগছে, যদি অফিসে সবাই আমাদের সম্পর্কের কথা জানতে পেরে যায়? তখন পরিস্থিতি কী পর্যায়ে যাবে? তা আমার জন্য় আরও ভয়ানক হয়ে উঠতে পারে। আমি সবার চোখে ছোট হয়ে যেতে পারি।

আমার নামে সবাই খুব বাজে বাজে কথা বলতে পারে। বসকে না বললেও অফিসে টেকা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠবে। আবার সম্পর্কে গেলেও তা যদি এক সময় সবাই জানতে পারে, আমি চাকরি হারাতে পারি। তাহলে এখন আমি কী করব?

বিশেষজ্ঞের পরামর্শ পরামর্শ দিচ্ছেন চাঁদিন তুঘনাইত। তিনি সাইকোথেরাপিস্ট-কোচ। গেটওয়ে অফ হিলিংয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও ডিরেক্টর। আমি আপনার পরিস্থিতি বুঝতে পারছি। খুবই সমস্যায় আছেন আপনি। কীভাবে এই পুরো ঘটনা সামাল দিচ্ছেন, তা ভেবেও চিন্তা হচ্ছে। তবে এই কথাটি জেনে রাখুন, চাকরি বাঁচানোর জন্য বসের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করার কোনও অর্থ নেই।

আপনি যে সম্পর্কে যাবেন ভাবছেন, তা জীবনের কোনও না কোনও সময়ে গিয়ে আপনার নিরাপত্তাহীনতার কারণ হয়ে উঠতে পারে। আপনাকে চিন্তায় ফেলতে পারে। আপনার দুশ্চিন্তা বাড়াতে পারে। আপনার বস একটি সম্পর্কে থাকার পরেও আপনার সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করতে চায়। সব দিক ভালো করে ভাবুন। তারপরেই নতুন করে সিদ্ধান্ত নিন। ঝোঁকের মাথায় কোনও সিদ্ধান্ত নেবেন না।

কোম্পানির নিয়ম জানেন? আমি আপনাকে বলতে চাই যে, অনেক অফিসেই এসব ব্যাপারে খুব কড়া নিয়ম থাকে। যে অফিসে কোনও সিনিয়র এবং অন্য নিম্ন পদস্থ কর্মীর মধ্য়ে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা বা সম্পর্ককে মেনে নেয় না। তখন অফিসের তরফে দুজনের বিরুদ্ধেই কড়া পদক্ষেপ করা হয়। তাই বসের সঙ্গে কোনও রকম ঘনিষ্ঠতায় জড়ালে নিজের চাকরিকেই অনিশ্চয়তার মধ্য়ে ফেলবেন আপনি।

আপনার অফিসে এই রোম্যান্টিক রিলেশনশিপ নিয়ে হয়তো সরাসরি কিছু কড়া নিয়ম না থাকতে পারে। কিন্তু বসের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ালে তা আপনার ইমেজ খারাপ করতে খুব বেশি সময় নেবে না। কারণ, তিনি বিবাহিত। তাই যখন সবাই আপনাদের সম্পর্কের কথা জানতে পারবেন, আপনার দিকেও অভিযোগের আঙুল উঠবে। আপনার সেখানে কাজ করা প্রায় অসম্ভব হয়ে উঠতে পারে।

এই পরিস্থিতিতে নিজেকে সামলে রাখা বেশ কঠিন। কিন্তু আপনাকেই কঠোরভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আপনার বস আপনার থেকে নানারকম সুবিধা নিতেই পারেন। কারণ, তাঁর কাছে ক্ষমতা বেশি। যদি আপনার মনে হয়, তিনি আপনার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছেন কিংবা অন্যরকম ইঙ্গিত দিচ্ছেন, আপনিই কড়া পদক্ষেপ করুন। প্রথমেই একটি সীমারেখা তৈরি করুন। প্রয়োজনে সরাসরি তাঁর সঙ্গে কথা বলতে পারেন

শেষে করুন এই কাজ তাঁকে আপনি আপনার মনের কথা বলতেই পারেন। জানাতে পারেন যে, অফিসের বাইরে পেশাদার সম্পর্ক ছাড়া আর অন্য কিছু আপনি চান না। কোম্পানির ‘সেক্সুয়াল হ্যারাসমেন্ট পলিসির’ কথাও তাঁকে মনে করিয়ে দিতে পারেন। তারপরেও যদি পরিস্থিতি ঠিক না হয়, তবে HR-এর সঙ্গে কথা বলুন। তারা আপনাকে সবরকম ভাবে সাহায্য করতে পারে। কারণ, আপনি এই কোম্পানির জন্য যথেষ্ট পরিশ্রম করেন। তাই সহজেই কেউ আপনার চাকরি ছিনিয়ে নিতে পারবেন না। শুধু আপনাকে একটু সতর্ক ও বিচক্ষণ থাকতে হবে।

আরো পড়ুন

পাত্র খুঁজে পাচ্ছেন না যে গ্রামের সুন্দরী নারীরা

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সংস্কৃতিও ভিন্ন। একেক দেশের রীতি অন্য দেশের কাছে অদ্ভুত বা উদ্ভট বলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *