বিদ্যুৎক্ষেত্রে দেশজুড়ে বসতে চলেছে প্রি-পেইড স্মার্ট মিটার, জেনে নিন এর সুবিধা-অসুবিধা..

বিদ্যুৎক্ষেত্রে দেশজুড়ে বসতে চলেছে প্রি-পেইড স্মার্ট মিটার- বিদ্যুতের অপচয় বন্ধ এবং গ্রাহকদের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ প্রক্রিয়া সহজ করতে সরকার দ্রুত প্রিপেইড মিটার স্থাপন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে চলেছে। সরকার বলেছে এই প্রিপেইড মিটার হবে গ্রাহকবান্ধব।ভুতুড়ে বিল, সময় মত বিল না পাওয়া, বিল পরিশোধের নানা হয়রানির বিষয়গুলি আর থাকবে না। এছাড়া অগ্রিম টাকা দিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হবে, যতটা

বিদ্যুৎ আপনি খরচ করবেন ততটাই টাকা আপনাকে দিয়ে দিতে হবে, একরকম মোবাইল রিচার্জ এর মত।সরকারি দফতরে প্রি-পেইড বিদ্যুতের মিটার বসানোকে বাধ্যতামূলক করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় প্রি-পেইড বিদ্যুৎ মিটারের জন্য অগ্রিম টাকা দিয়েই তা নিতে হবে

বলে জানান হয়েছে। বিদ্যুৎ মন্ত্রকের মতে, আর্থিক স্থিতি আনার জন্যই এই প্রচেষ্টা। রাজ্যগুলির জন্যও একটি মডেল হিসেবে কাজ করবে এই ব্যবস্থা। এই স্কিমের অধীনে, পর্যায়ক্রমে কৃষি ভোক্তাদের বাদে সকল বিদ্যুৎ গ্রাহকদের জন্য প্রিপেইড স্মার্ট মিটারের ব্যবস্থা করা হবে। নগর ও

গ্রামীণ স্থানীয় সংস্থা এবং সরকারি বোর্ড এবং কর্পোরেশন সহ কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের সব বিভাগে প্রিপেইড স্মার্ট মিটার স্থাপনে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এই স্কিমের আওতায় পর্যায়ক্রমিকভাবে কৃষি ভোক্তাদের বাদ দিয়ে সকল বিদ্যুৎ গ্রাহকদের জন্য এই মিটার বসানোর ব্যবস্থা করা

হবে। প্রিপেড স্মার্ট মিটার বসানোর অগ্রাধিকার হিসেবে নগর ও গ্রামীণ স্থানীয় সংস্থা, সরকারি বোর্ড এবং কর্পোরেশন সহ কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের সব বিভাগ দেরকে দেওয়া হবে। এর সাহায্যে নিশ্চিত করা হবে সরকার বিভাগ গুলি এর জন্য যাতে একটি সঠিক আর্থিক বাজেট বজায় রাখে। বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের হিসাব এবং সঠিক সময়ে বিল মিটিয়ে দেওয়া সচল রাখতে এই পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

প্রি-পেইড মিটারের অসুবিধা:
প্রিপেইড বিদ্যুতের বিভিন্ন অসুবিধা বোঝাও গুরুত্বপূর্ণ। প্রিপেইড বিদ্যুৎ পরিকল্পনা সাধারণত অন্য কোন ধরনের স্থির বা পরিবর্তনশীল পরিকল্পনার চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল। যেমন, আপনি সবচেয়ে সস্তা হারে অ্যাক্সেস করতে পারবেন না। সংযোগ বিচ্ছিন্নতার ব্যালেন্সে বা তার উপরে

আপনাকে অবশ্যই আপনার অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স বজায় রাখতে হবে, অন্যথায় আপনার পরিষেবা বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।যখন আপনার প্রিপেইড বিদ্যুৎ অ্যাকাউন্টের ক্রেডিট ফুরিয়ে যায়, তখন আপনার পরিষেবা বন্ধ হয়ে যায়। আপনার অ্যাকাউন্টের ব্যালেন্স ফুরিয়ে যাওয়ার পরে

পরিষেবাটি খুব কম নোটিশে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আপনি কম ব্যালেন্স বিজ্ঞপ্তি পাওয়ার একদিনের মধ্যেই প্রিপেইড বিদ্যুৎ পরিষেবা বিচ্ছিন্ন হতে পারে। বাইরে আবহাওয়া বেশি গরম হলে আপনাকে আরো প্রায়ই টপ-আপ করতে হবে। আপনি যদি ব্যবসায়িক ভ্রমণে যান বা

ছুটি নেন, তাহলে আপনার অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত ক্রেডিট আছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে যাতে আপনি দূরে থাকাকালীন বিদ্যুৎ হারাবেন না, যা অনেক সমস্যার কারণ হতে পারে (যেমন বাড়ি ফিরে আসা নষ্ট হয়ে যাওয়া আপনার রেফ্রিজারেটরে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর থেকে খাবার)।

আরো পড়ুন

খুবই অল্প টাকাই, অসম্ভব সুন্দর বাড়ি বানানোর সহজ ডিজাইন! যা তুমুুল ভাইরাল নেটদুনিয়ায়। রইল স্টেপ বাই স্টেপ পদ্ধতি

নিজস্ব প্রতিবেদন:মাটির ঘর এখন রূপকথার গল্পের মত হয়ে গেছে। কেননা বর্তমানে দশ গ্রাম খুঁজেও একটি …