গ্যাস সিলিন্ডার থেকে ভয়া’বহ আগুন কিছুক্ষণ আগে ঘটনাটি ঘটেছে একটি চাইনিজ দোকানে, তুমুল ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন: গ্যাস সিলিন্ডার থেকে ভয়াবহ আগুন ঘটনাটি ঘটেছে চাইনিজ দোকানে। সেই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করার সাথে সাথে তুমুল ভাইরাল ও হইচৈই ফেলেছে।ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একটি
চাইনিজ দোকানে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে ভয়াবহ আগুন জলছে।সেখানে কোন ফাইয়ার সার্ভিস নেই বা কেউ আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে না।

বর্তমানে প্রায় সকলের ঘরে ঘরে গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কিন্তু আমরা অনেকেই এর সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে অবগত নই। যার ফলে ঘটে যেতে পারে যেকোনো সময় মারাত্মক দুর্ঘটনা। অসতর্কতার সাথে সিলিন্ডার ব্যবহারের ফলে অনেক সময় ঘটে যায় মারাত্মক বড় দুর্ঘটনা। তাই আজকে আমরা জেনে নেবো গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করার কিছু নিয়ম কানুন।

অনেকেই আছেন রান্না শেষে সরাসরি সিলিন্ডারের রেগুলেটর বন্ধ করেন কিন্তু গ্যাস বার্নারের নব বন্ধ করতে ভুলে যান বা করেন না। এতে গ্যাস ও সিলিন্ডার তাৎক্ষনিক ভাবে বন্ধ হয়ে যায় ঠিকই, কিন্তু বিপদের আশঙ্কা থেকেই যায়। সরাসরি সিলিন্ডারের নব বন্ধ করাতে গ্যাস বেরোনোর পথ হয়তো বন্ধ হয় কিন্তু বার্নারের ভিতরের গ্যাস হু হু করে বের হতে থাকে।আবার কেউ কেউ আছেন বার্নারের নব বন্ধ করেন কিন্তু সিলিন্ডারের না। এটা থেকেও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

রান্নার গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারি। ফলে গ্যাস লিক করলেও তা মেঝে ও বার্নারের মুখের কাছাকাছি ঘোরাফেরা করে। এ কারণে এই সময় লাইটার কিংবা ম্যাচের কাঠি দিয়ে গ্যাস জ্বালাতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে আগুন লেগে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। এ কারণে রান্না শেষ হবার পর নিয়ম মেনে প্রথমে গ্যাস বার্নারের নব বন্ধ করুন। পরে করুন সিলিন্ডারের ।

গ্যাস সিলিন্ডার থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। যেমন- ১. গ্যাসের রেগুলেটর ঠিকমতো বন্ধ করা হয়েছে কিনা তা দেখে রান্নাঘর থেকে বের হোন।এবং সিলিন্ডার ক্রয় করার সময় এর এক্সপায়ার ডেট দেখে কিনুন।
২. গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপে কোনও ধরনের ছিদ্র আছে কিনা সেটাও নিয়মিত পরীক্ষা করুন। ৩. অনেকে গ্যাস ব্যবহারের পর লাইটার বা ম্যাচটি চুলার উপরেই রেখে দিন। এটা মোটেও উচিত নয়। চুলার থেকে নিরাপদ দুরত্বে রাখা উচিত ম্যাচ বা লাইটার।

৪. রান্নাঘরে ঢুকে গ্যাসের কোনও গন্ধ পেলে তাড়াতাড়ি সেখান থেকে বের হয়ে আসুন। ওই অবস্থায় কোনও সুইচ বোর্ড বা বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম চালু করবেন না। গ্যাসের লাইনের কাউকে খবর দিন। ৫. গ্যাস বন্ধ করে বের হওয়ার আগে সিলিন্ডারের পাইপ যেন কোনও ভাবে গরম বার্নারের গায়ে লেগে না থাকে সেটা লক্ষ্য করুন।

৬. গ্যাসের পাইপ কখনও সাবান দিয়ে পরিষ্কার করবেন না। পাইপ পরিষ্কার করতে শুকনো কাপড় ব্যবহার করুন।খুব নোংরা হলে হালকা করে পানিতে ভিজিয়ে কাপড়টা ভালভাবে নিংড়ে সেই কাপড় ব্যবহার করুন। সাবানের ফেনা বা পানি কোনও ভাবে গ্যাসের সঙ্গে মিশে গেলে মারাত্মক বিপদ ঘটতে পারে।

৭. গ্যাসের পাইপটির গায়ে বা সিলিন্ডারে ‘আইএসআই’ চিহ্ন আছে কিনা, তা দেখে নিতে ভুলবেন না। ‘আইএসআই’ চিহ্ন না থাকলে সেই সিলিন্ডার বা পাইপ অবিলম্বে পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাকে ফেরত দিন। ৮. একই পাইপ বছরের পর বছর ব্যবহার করবেন না। নিরাপত্তার খাতিরে প্রতি ২-৩ বছর পর পর গ্যাসের পাইপ বদলে ফেলুন।

বিস্তারিত ভিডিওতে দেখুনঃ

আরো পড়ুন

বৃদ্ধ চাচার চায়না জালে ধরা পরল হাওরের অদ্ভুত ধরনের বড় বড় মাছ। এসব মূল্যবান মাছ ভাগ্য বদলে দিল বৃদ্ধ লোকটির, তুমুল ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন: সেই আদিম যুগ থেকেই মানুষ জেলের কাজ করে আসছে। আদিম যুগে যখন মানুষ …