পুরুষদের যে ৬টি জিনিসকে ‘গো’পনে’ ভালবাসে নারীরা!

পুরুষদের ঠিক কোন জিনিসগুলি আকৃ’ষ্ট করে মেয়েদের? নিজের প্রেমিক বা স্বামীর ব্যক্তিত্বের কোন দিকটি তাঁদের সবথেকে বেশি পছন্দ? এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া ক’ঠিন, কারণ এক এক জনের পছন্দ এক এক রকম। কিন্তু স’ম্প্রতি লাইস্টাইল ইভেন্ট গ্রুপ ফেমিয়ানা-র দ্বারা পরিচালিত একটি সমীক্ষার ফলাফলে উঠে এসেছে একটি অদ্ভুত তথ্য।

সমীক্ষাটির লক্ষ্য ছিল, পুরুষদের প্রতি মেয়েদের আক’র্ষণের কয়েকটি গো’পন কে’ন্দ্রবিন্দুকে আবিষ্কার করা, অর্থাৎ এমন কয়েকটি বিষয়—পুরুষদের ব্য’ক্তিত্বের যে দিকগু’লি অপছন্দ করার ভান করেন মেয়েরা, কিন্তু মনে মনে আ’সলে সেগুলি পছন্দই করেন। ৬৭২৯ জন মহিলাকে প্রশ্ন করার পর সমীক্ষার ফলাফল স্বরূপ সংস্থাটি প্রকাশ করেছে মেয়েদের এমন ২০টি ‘গো’পন’ ভাললাগার কথা। এখানে রইল সেই তালিকার প্রথম ৬টি বিষয়— ও তো কোনও বিষয়ে আমার পরামর্শই চায় না’: স্বামী বা প্রেমিক স’স্পর্কে চিরচেনা অ’ভিযোগ। কিন্তু আদপে অন্য কারোর প’রামর্শ ছাড়াই সিদ্ধা’ন্ত নেওয়ার উপযুক্ত মা’নসিক দৃঢ়তা একজন পুরুষের মধ্যে মেয়েরা পছন্দই করেন।

আমি যখন কথা বলব, তুমি চুপ করে থাকবে’: প্রেমিক বা স্বামীর স’ঙ্গে ঝগড়ার সময়ে মেয়েরা অনেকেই রেগে গিয়ে এই কথা বলেন। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, তিনি সত্যিই চাইছেন তাঁর সঙ্গীটি মুখ বুজে থাকুক। বরং ত’র্ক, এবং যুক্তির বিপক্ষে প্রতিযুক্তিই যে কোনও স’মস্যা সমাধানের সবচেয়ে কা’র্যকর উপায় তা জা’নেন যে কোনও বুদ্ধিমতী। কাজেই সঙ্গীর ত’র্কশীলতাকে মনে মনে তাঁরা পছন্দই করেন।

ওর তো সাত চড়ে রা নেই’: হ্যাঁ, ত’র্ক করা ভাল, কিন্তু তা বলে র’ক্তচক্ষু হয়ে চেঁচিয়ে বাড়ি মাথায় করা মোটেই কাজে’র কথা নয়। অনেক পুরুষ ভাবেন, তর্জন-গর্জনেই বুঝি পৌরুষের প্র’কাশ, ওটাই বুঝি পছন্দ করেন মেয়েরা। একেবারে ভুল। বরং ঝগড়ার মুহূ’র্তেও, সঙ্গিনীর কুবাক্য শুনেও মাথা ঠান্ডা রাখতে পারেন যিনি, তিনিই আক’র্ষণীয় পুরুষ। আপনার এই শীতলতা নিয়ে আপনার সঙ্গিনী কখনও-সখনও কটাক্ষ করলেও, জানবেন, মনে মনে আপনার এই স্বভাব তিনি পছন্দই করেন।

‘আবার ব’ন্ধুদের স’ঙ্গে আড্ডা দিতে বেরিয়ে গেছে!’: স্বামী বা প্রেমিক নিজের বন্ধুদের স’ঙ্গে আড্ডা দিচ্ছে বা ঘুরছে—এমনটা দেখলে/জানতে পারলে, মুখে মেয়েরা যতই অসন্তোষ প্র’কাশ করুন না কেন, মনে মনে খুশিই হন। আ’সলে ছেলেরা একটু সামাজিক হোক, অন্য বন্ধুদের (অবশ্যই ছেলে বন্ধু) স’ঙ্গে আড্ডা মা’রুক, সময় কাটাক—এটা মেয়েরা ভালই বাসেন। সমাজবি’চ্ছিন্ন একলা পুরুষের সঙ্গ তাঁদের নাপসন্দ।

সারাক্ষণ স্পোর্টস চ্যানেল খু’লে বসে থাকো কেন?’: দাম্পত্য জীবনে স্বামীর প্রতি স্ত্রীয়ের চেনা অ’ভিযোগ। আদপে কিন্তু মেয়েরা খেলাধুলো, দৌড়ঝাঁপ ব্যাপারটাকে যথেষ্ট পুরুষালি বলে মনে করেন। সেই কারণেই মেয়েদের মধ্যে নামজাদা খেলোয়াড়দের এত জনপ্রিয়তা। নিজে’র কর্তাটি খেলতে না পারুক, অ’ন্তত খেলা দে’খতে ভালবাসে—এই ভাবনা মনে মনে শান্তি দেয় অধিকাংশ মহিলাকেই।

ও তো নিজে’র মনের কথা বুঝতেই দেয় না’: কথাটা অ’ভিযোগের সুরে বলা হলেও, নিজে’র মনের ভাব নিজে’র মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখতে পারাটা একজন পুরুষের মা’নসিক দৃঢ়তার পরিচায়ক বলেই মনে করেন মেয়েরা। তার অর্থ এই নয় যে, নিজে’র ভাল লা’গা, খা’রাপ লা’গা কোনও কিছুই নিজে’র সঙ্গিনীর স’ঙ্গে শেয়ার না করলে তাঁরা খুশি হবেন। তবে দু’শ্চিন্তা, কিংবা শো’কের আবেগ যাঁরা বেশি প্র’কাশ করেন না, সেইসব পুরুষকে পছন্দই করেন মেয়েরা।

নারী দে’হ নিয়ে পুরুষের ৬ অজানা ভয় একেবারেই ভাববেন না, পুরুষকুল মিলনতা নিয়ে ভীত নয়। এ ব্যাপারে কোনও কোনও পুরুষ নাকি মহিলাদেরও হারিয়ে দিতে পারেন। ভয়ের কারণে মিলন সুখেও চলে আসে নানাবিধ বাধা। মিলন জীবন হয়ে ওঠে দুর্বিষহ, অসহ্য। মিলনতা নিয়ে পুরুষের কী কী ভয় কাজ করে জেনে নিন।

১. পুরুষত্বহীনতার ভয়: পুরুষত্বহীনতা নিয়ে ভয় থাকে পুরুষের মনে। এবং জেনে রাখা ভালো, সেই ভয় থেকেই পুরুষত্বহীনতা দেখা দেয়। ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে দেখা গেছে, মিলন অক্ষমতার জন্য দায়ি একমাত্র ভয়। পুরোটাই মানসিক সমস্যা। কেবল ১০ শতাংশ পুরুষের মধ্যে সমস্যাটি ও বায়োলজিক্যাল।

২. অতৃপ্ত নারীকে ভয়: কোনও নারীর মিলন চাহিদা তুলনায় বেশি হলে, তাকে মনে মনে ভয় পেতে শুরু করেন পুরুষ। নারীকে তৃপ্ত না করতে পারার শঙ্কা তাকে মিলন ভাবে দুর্বল করে তোলে। কিন্তু কোনও পুরুষ যদি মিলন ভাবে অতিরিক্ত সক্রিয় হন, তার মধ্যে সেই ভয় কাজ করে না। বরং সেরকম চার্জডআপ নারীকেই মনে মনে কামনা করেন তিনি।

নারী দেহ নিয়ে পুরুষের ৬ অজানা ভয়৩. সংযম হারানোর ভয়: বিবাহিত বা কমিটেড পুরুষের মনে এক অদ্ভুত ভয় কাজ করে। স্ত্রী বা প্রেমিকার প্রতি ভালোবাসা থেকেই সেই ভয়ের উৎপত্তি। তিনি মনে করেন অতি সুন্দরী কোনও নারীকে দেখে যদি কাম জেগে যায়, তবে সেই ইচ্ছেকে দমন করবেন কী করে? আফটার অল মানুষ তো! যদি স্রোতের সঙ্গে ভেসে যান, তা হলে যে প্রিয়তমাও দূর দূর করবে। এমন ধাক্কা তিনি সামলাবেন কী করে? সেই চিন্তা থেকেই ভয়ের জন্ম। তাই আত্মসংযম ধরে রাখতে আপ্রাণ চেষ্টা চলে মনে মনে।

৪. প্রিয়তমার অন্য পুরুষের প্রতি আকর্ষণে সবচেয়ে বেশি ভয়: একটু ডমিনেটিং গোছের প্রেমিকের ক্ষেত্রে এই ভয় কাজ করে। তিনি মনে করেন প্রেমিকা তার একার সম্পত্তি। অন্য কেউ তাকে প্রভাবিত করবে, এই চিন্তা তিনি কিছুতেই মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে পারেন না। মনে হয়, প্রেমিকা তাকে ছেড়ে অন্য কোনও পুরুষের প্রতি আকৃষ্ট হলে, তিনি সেটা সহ্যই করতে পারবেন না। এই মানসিক সমস্যা কিন্তু সম্পর্কে ফাঁটলও ধরাতে পারে।

৫. স্বাভাবিক না হওয়ার ভয়: কোনও কোনও পুরুষের মনে শঙ্কা থাকে, তিনি যে পদ্ধতিতে মিলত হন, বাকিরাও কি সেই পদ্ধতিতেই মিলনসুখে লিপ্ত হয়! নাকি তার পদ্ধতিটাই এক্সক্লুসিভ। তেমনটা হলে ভালো। প্রেমিকা চট করে ছেড়ে যেতে চাইবে না। কিন্তু বিপরীতটা হলেই মুশকিল। মনে ভয়, আরও ভালো কোনও পার্টনার পেলে হয়তো প্রেমিকা হাতছাড়া হবে। কী উদ্ভট খেয়াল!

৬. পুরুষাঙ্গের আকার নিয়ে ভয়: অধিকাংশ পুরুষ মনে করেন, তার পুরুষাঙ্গটির আকার প্রয়োজনের চেয়ে ছোটো। হয়তো সেটি সঙ্গীকে পুরোপুরিভাবে তৃপ্ত করতে পারছে না। তা হলে জেনে রাখুন, পুরুষাঙ্গের উপর মিলন তৃপ্তি নির্ভর করে না। তৃপ্তি আসতে পারে মাঝারি বা ছোটো আকারের পুরুষাঙ্গ থেকেও। পুরোটাই নির্ভর করে পারফরম্যান্সের উপর।

আরো পড়ুন

গ্রামের বন্যার চমৎকার দৃশ্য একেছেন শিল্পী ! এমন সৌন্দর্য মন কেড়েছে নেটিজনদের। তুমুল প্রশংসা শিল্পীর।

নিজস্ব প্রতিবেদন:চিত্র আঁকা অনেক মানুষেরই পেশা আবার অনেকের আবেগ আবার অনেকের শখ। চিত্র আঁকতে আমরা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *