আবারও ক্ষমতায় ফিরছে তালেবান…

আবারও ক্ষমতায় ফিরছে আফগানিস্তানের সশস্ত্র বিদ্রোহীগোষ্ঠী তালেবান। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে আফগানিস্তানের ক্ষমতা নিজেদের হাতে চায় তালেবান। প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি তাজিকিস্তানের উদ্দেশ্যে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার পর প্রেসিডেন্ট প্যালেস তালেবান দখলে নিয়েছে বলে তালেবানের দুই কমান্ডার জানিয়েছেন। তবে আফগান সরকারের তরফ থেকে তালেবানের এই দাবি নিশ্চিত করা হয়নি।

তালেবান বাহিনীকে কাবুলে প্রবেশ করতে বলা হয়েছে বলে সংগঠনটির মুখপাত্র জাহিবুল্লাহ মুজাহিদ স্থানীয় টোলো নিউজকে জানিয়েছেন। কাবুলের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণেই রাখা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। এদিন কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের মুখপাত্র সুহেইল শাহীন বলেন, আগামী কয়েক দিনে আমরা শান্তিপূর্ণ হস্তান্তর চাই। দীর্ঘ ২০ বছর পর ফের আফগানিস্তানের ক্ষমতায় বসতে যাওয়া তালেবানের নীতি কী হবে, তা নিয়েও কথা বলেন শাহীন।

সুহাইল শাহিন এক টুইটে বলেন, যারা এর আগে আগ্রাসনবাদীদের জন্য কাজ করেছেন বা তাদের সাহায্য করেছেন অথবা এখন যারা দুর্নীতিবাজ কাবুল প্রশাসনের বিভিন্ন পদে কর্মরত আইইএ তাদের সবার জন্য দরজা খোলা রেখেছে এবং এরই মধ্যে ক্ষমা ঘোষণা করেছে। আমরা তাদের আরেকবার আমন্ত্রণ জানাচ্ছি, যেন তারা দেশ ও জাতির সেবায় কাজ করতে এগিয়ে আসেন।

মুখপাত্র সুহাইল শাহিন বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আমরা আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গানি এবং অন্য নেতাদের আমাদের সঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানাচ্ছি। তালেবান নারীদের বিষয়ে আগের রক্ষণশীল অবস্থা থেকে সরে আসবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। শাহীন বলেছেন, আফগান নারীরা চাইলে বাড়ির বাইরে বের হতে পারবেন, তবে অবশ্যই হিজাব পরতে হবে।

তিনি বলেন, কূটনীতিক, এনজিও থেকে শুরু করে কারোরই জীবনের কোনো হুমকি নেই। আগের মতোই তারা তাদের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারবেন। তালেবান যোদ্ধারা তাদের কোনো ক্ষতি করবে না। ইসলামি আইনের কট্টর রক্ষণশীল মতবাদ অনুযায়ী ২০ বছর আগে দেশ শাসন করেছিল তালেবান। সেই যুগে ফের ফিরে যাওয়ার শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে শাহীন জানান, তালেবান বরং সহনশীলতার নতুন অধ্যায়ে প্রবেশ করবে। তিনি বলেন, আমরা যেকোনো আফগান নাগরিকের সঙ্গে কাজ করতে চাই। আফগানিস্তানের মানুষের জন্য আমরা শান্তি, সহনশীলতা, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান ও জাতীয় ঐক্যের নতুন অধ্যায়ের সূচনা করব।

এদিকে জার্মানিতে নিযুক্ত দেশটির সাবেক রাষ্ট্রদূত আলী আহমদ জালালিকে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে। আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের হাতে ‘শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর’ করতে চাইছে সরকার। স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, তালেবান যোদ্ধারা সরকারের কাছ থেকে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে প্রেসিডেন্ট প্যালেসে গেছেন।

এর আগে, রোববার সকাল থেকেই কাবুলের পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চারদিক থেকে রাজধানীতে ঢুকতে শুরু করে তালেবান যোদ্ধারা। সশস্ত্র গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, তারা তাদের যোদ্ধাদের কাবুলের প্রবেশপথে বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থানের নির্দেশ দিয়েছে। জোর করে কাবুল দখলের কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই। গোষ্ঠীর এক নেতার বরাতে রয়টার্স জানিয়েছে, যারা আফগানিস্তান ছাড়তে চান তাদের নিরাপদে যেতে দিতে যোদ্ধাদের নির্দেশ দিয়েছে তালেবান। তালেবান মুখপাত্র সুহেইল শাহীন জানিয়েছেন, তারা কাবুলে শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের অপেক্ষায় রয়েছেন।

আরো পড়ুন

শিকল পরিয়ে টেনে নেওয়া সেই বারদারই আফগানিস্তানের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট!

এগারো বছর আগে হাতে হাতকড়া পরিয়ে শিকল দিয়ে টেনে নেওয়া হচ্ছিল যাকে, সেই আব্দুল গনি ...